যত বেশি ঝগড়া তত বেশি ভালোবাসা, ঝগড়া নেই ভালোবাসা ও নেই!

যত বেশি ঝগড়া তত বেশি ভালোবাসা, ঝগড়া নেই ভালোবাসা ও নেই!

এটা বোঝার জন্য অবশ্য কোনো মনোবিজ্ঞানীর শরণাপন্ন হতে হয় না। যে মানুষের মাঝে অনুভূতি নামক কথাটা রয়েছে, হোক সে বিবাহিত কিংবা  গভীর কোন সম্পর্কে রয়েছেন এমন কোন ব্যক্তি, তবে তিনি নিজেকে বিচার করলেই সেটা বুঝতে পারবেন।

মনের মানুষের সঙ্গে প্রচন্ড ঝগড়া করার অল্প সময় পর যখন মন উথাল পাথাল করে, অথবা সেই মনের মানুষ রেগে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে রাখে, ঠিক তখন নিজেই যখন আবার ফোন করেন, তখন একজনের অভিমান আরেকজন ভেঙ্গে ফেলেন। রাগ যত বেশি হোক না কেন সবসময় রাগ হেরে গিয়ে জিতে যায় প্রেম।

তবে সাধারণ বুদ্ধি-বিবেচনাসম্পন্ন মানুষেরা সেটা বুঝতে পারে না। বিখ্যাত ‘গার্ডিয়ান’ পত্রিকায় প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে এ ব্যাপারে সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ জোসেফ গ্রেনির পরামর্শ উল্লেখ করা হয়েছে।

গ্রেনি হলেন সম্পর্ক সংক্রান্ত ‘ক্রুশিয়াল কনভারসেশন’ নামক একটি বই এর সহ-রচয়িতা। তার মতে, দম্পতিদের সবচেয়ে বড় ভুল হলো কোনকিছু এড়িয়ে যাওয়া। আমরা ভাবি কিন্তু মুখে বলি না, অন্তত যতক্ষণ না পুরো ব্যাপারটা অসহ্য হয়ে ওঠে, ততক্ষণ পর্যন্ত না। আমরা আসলে এই সব কথোপকথনগুলো এড়িয়ে যাই এটা ভেবে যে, বললে অনেক কিছু হতে পারে। কিন্তু আমরা এটা বুঝি না যে না বললেও অনেক কিছু হতে পারে। আসলে গ্রেনি বুঝাতে চেয়েছেন যে সম্পর্কের মাঝে কোন দেয়াল বা পর্দা রাখা উচিৎ নয়। আপনার মনে যা এলো সঙ্গীর সাথে ব্যক্ত করুন। এতে সম্পর্ক আরো মধুময় ও শক্তিশালী হয়।

ওই প্রতিবেদনেই প্রকাশিত একটি সমীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী এটা বলা চলে, যে সমস্ত দম্পতিরা ঝগড়া করেন, তারাই সম্পর্কের দিক থেকে অনেক বেশি সুখী। তাদের থেকে, যারা সচরাচর সমস্ত মতামত ও কথা গোপন রাখেন।  এ সংক্রান্ত একাধিক মার্কিন গবেষণার ফলাফলও তাই বলছে। একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় জানা গেছে, ৪৪% মার্কিন দম্পতি মনে করেন যে সপ্তাহে অন্তত একবার ছন্দময় ঝগড়া হওয়ার মানে তাদের পারস্পরিক যোগাযোগ অনেক বেশি শক্তিশালী।

সম্পর্কে ঝগড়া কেন প্রয়োজন?

১. ঝগড়ার অর্থ হচ্ছে আপনি আপনার সঙ্গীর প্রতি যত্নবান

যখন আপনি রাগান্বিত হয়ে আপনার সঙ্গীর সাথে ঝগড়া করেন পরক্ষণেই আপনি আপনার ভুল বুঝতে পারেন। যার অর্থ হলো আপনি নিজেকে  সমস্যা থেকে না লুকিয়ে আপনি আপনার ক্রোধ ও আঘাতকে আরো ভালো করে তত্ত্বাবধান করতে পারছেন। এর সাহায্যে আপনার সঙ্গীর সাথে সম্পর্ক আরো শক্তিশালী হয়। অনেকেই মনে করেন ঝগড়া হচ্ছে খারাপ সম্পর্কের লক্ষণ! কিন্তু আসলে ঠিক তেমনটা নয়। বরং ঝগড়া আপানাকে আপনার সঙ্গীকে আরো ভালভাবে বুঝতে সাহায্য করে।

২. ঝগড়া দুজনকে স্বাস্থ্যবান ও সুবিবেচক হতে সাহায্য করে 

গবেশণায় দেখা যায় যে সকল ব্যক্তি তাঁদের ক্রোধ চাপিয়ে রাখে তাঁদের প্রচন্ড মানসিক চাপ তৈরি হয় যার ফলে বড় ধরণের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। এজন্য সে সকল দম্পতিরা অধিক সুখী ও সুন্দর জীবনযাপন করেন যারা তাঁদের রাগ চাপিয়ে না রেখে প্রকাশ করেন এবং নিজেদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা মিটিয়ে নেন।

৩. ঝগড়া করার অর্থ হচ্ছে আপনি সৎ

যদি আপনি অপরাধী হন তাহলে ঝগড়ার সময় চুপ থাকবেন কিন্তু এতে হয়ত একটি ছন্দহীন জীবনের মধ্যে দিয়ে আপনি ও আপওনার সঙ্গী দিন যাপন করবেন। শুধু সংসার ই হবে কখনোই আপনার সঙ্গীর ভেতরের চাওয়া পাওয়া ও সত্যিকারের অনুভূতি জানতে পারবেন না।আর আপনি আপনার নীরবতা যদি বাড়াতে থাকেন তাহলে সম্পর্ক কাঁচের দেয়ালের মত পাতলা হয়ে যাবে যা যেকোন মুহুর্তে ভেঙ্গে যেতে পারে।

৪. ঝগড়ার অর্থ হলো অপেক্ষাকৃত ভাল যৌন সম্পর্ক 

ঝগড়ার আগে যৌন সম্পর্ক নাকি ঝগড়ার পরে?একটু খেয়াল করে ভেবে দেখুন আপনি কি অস্বীকার করতে পারবেন যে যেদিন আপনার সঙ্গীর সাথে ঝগড়া হয়েছে তাঁর সাথে সেদিন যৌন মিলন হয়নি? যদি না হয় তাহলে আপান্দের মধ্যে ভালোবাসা অনুপস্থিত ও আপনারা সুষম দম্পতি নন! যেদিন সঙ্গীর সাথে প্রচন্ড ঝগড়া হবে আপনি তাঁর সাথে একবার যৌন সম্পর্ক স্থাপন করুন। দেখুন ম্যাজিক! কাজ শেষ হওয়ার সাথে সাথেই ইনিয়ে বিনিয়ে কথা বলা শুরু হয়ে যাবে। আর আপনি আপনার সঙ্গীটিকে আরো বেশি ভালবাসতে শিখবেন।

আসলে সম্পর্কে ঝগড়া যত বেশি, তত বেশি উষ্ণ সেই সম্পর্ক। পরস্পরের কাজ নিয়ে, ভাবনা নিয়ে প্রশ্ন তোলা, তার সমালোচনা করা অথবা অভিমান করা, এই সব কিছুই সম্পর্ককে উজ্জীবিত রাখে।আমরা কখনোই আশা করিনা আপনি আপনার সঙ্গীর সাথে ঝগড়ার সীমা পার করুন কিংবা প্রতিনিয়তই ঝগড়া করুন। আমারা শুধু এটা বোঝাতে চেয়েছি যে সুষম ঝগড়া সম্পর্ককে শক্তিশালী করে এবং দুজনকে দুজনের আরো কাছে আনে। ভালো থাকুক সকল সম্পর্কগুলো সবার ……

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




Copyright By banglarchokh24        
Design BY NewsTheme